হলমার্ক কেলেঙ্কারী জেসমিন, তুষার ও আজিজ রিমান্ড শেষে জেল হাজতে

0
158
Print Friendly, PDF & Email

রুপসীবাংলা, ঢাকা ২৩ অক্টোবর :
দেশের ইতিহাসে বৃহত্তম ঋণ কেলেঙ্কারির ঘটনায় দুদকের দায়ের করা দুর্নীতি মামলায় গ্রেফতার হলমার্ক গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর মাহমুদের স্ত্রী কোম্পানির চেয়ারম্যান জেসমিন ইসলাম, জেনারেল ম্যানেজার তুষার আহমেদ ও সোনালী ব্যাংকের শেরাটন শাখার সাবেক উপ-মহাব্যবস্থাপক একেএম আজিজুর রহমানকে রিমান্ড শেষে জেল হাজতে পাঠিয়েছে আদালত।
মঙ্গলবার জেসমিনকে ৫ দিন, তুষারকে ১৬ দিন ও আজিজকে ৮ দিন রিমান্ডের পর ঢাকার সিএমএম আদালতে হাজির করে জেল হাজতে আটক রাখার আবেদন করে দুদক। দুদকের আদালত শাখার জিআরও (সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা) আব্দুর রশিদ জানান, তুষার ও আজিজের রিমান্ডের বাকি দিনগুলো তুষারের ১৬ দিন ও আজিজের ৮ দিন) প্রয়োজন মত পরে পূরণ করা হবে।
আসামিদেরকে নতুন কোনো রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন না থাকায় সিএমএম আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট মোস্তাফিজুর রহমান তাদের জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। প্রসঙ্গত, সোনালী ব্যাংকের রূপসী বাংলা শাখা থেকে ঋণ কেলেঙ্কারির মামলায় গত ১৮ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় মানিকগঞ্জ সার্কিট হাউজের পেছনে বেওথা রোডের ১০ নম্বর বাসা থেকে জেসমিনকে আটক করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)-৪ ও র‌্যাবের গোয়েন্দা শাখার একটি যৌথ দল। জেসমিন একই মামলায় এর আগে গ্রেফতার হলর্মাক গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তানভীর মাহমুদের স্ত্রী। তানভীর গত ১৮ অক্টোবর আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।
উল্লেখ্য, বহুল আলোচিত হলর্মাক গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানভীর মাহমুদ ও তার স্ত্রী চেয়ারম্যান জেসমিন ইসলামসহ মোট ২৭ জনকে আসামি করে গত ৪ অক্টোবর ১১টি মামলা করে দুদক। আসামিদের মধ্যে হলমার্কের ৭ জন এবং সোনালী ব্যাংকের ২০ জন কর্মকর্তা রয়েছেন।
রাষ্ট্রয়াত্ত সোনালী ব্যাংকের রূপসী বাংলা শাখা থেকে ভুয়া ঋণপত্র বা এলসির মাধ্যমে হলমার্কের অর্থ আত্মসাতের ঘটনায় দুদকের ৬ সদস্যের অনুসন্ধান দলের সদস্যরা বাদী হয়ে রমনা মডেল থানায় এসব মামলা করেন। আসামিদের বিরুদ্ধে প্রতারণা, জালিয়াতি, অর্থ আত্মসাৎ, পরস্পরের যোগসাজশ, ক্ষমতার অপব্যবহার, অর্থের অপব্যবহার ও মুদ্রাপাচারের অভিযোগ আনা হয়েছে।

নিউজরুম

শেয়ার করুন