কোরবানির পর ঢাকাসহ সারাদেশ অচল করে দেয়া হবে :মির্জা আব্বাস

0
138
Print Friendly, PDF & Email

রুপসীবাংলা, ঢাকা ১৮ অক্টোবর :
কোরবানি ঈদের পর ঢাকাসহ সারাদেশ অচল করে দেওয়ার হুমকি দিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস। তিনি বলেছেন, “ব্যর্থ চোর, অযোগ্য ও লুটপাটকারী সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত সবকিছু বন্ধ করে দেওয়া হবে। এ লুটেরা সরকারের লোকজন তখন পালানোর পথ পাবে না।”
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স মিলনায়তনে বিএনপি নেতা নাসির উদ্দিন আহম্মেদ পিন্টু ও মোয়াজ্জেম হোসেন আলালের মুক্তির দাবিতে এক আলোচনা সভায় একথা বলেন তিনি। ‘বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের আটক করার তালিকা প্রস্তুত করছে সরকার’ উল্লেখ করে মির্জা আব্বাস বলেন, “কাকে সাজা দেবে, কাকে নির্বাচন করতে দেওয়া হবে না -এমন তালিকা করে লাভ হবে না। পরিকল্পনা করেছেন নেতাদের আটক রেখে নির্বাচন দেবেন? সেই নির্বাচনে আবারো ক্ষমতায় আসবেন? এটা কখনো হবে না।”
বিএনপির নির্বাচনে অংশ নেওয়ার পূর্বশর্ত হিসেবে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থার দাবি পুনর্ব্যক্ত করে তিনি বলেন, “অন্য কোনো পন্থায় নির্বাচন মেনে নেব না।” প্রধানমন্ত্রী আর একটি এক এগারো চান উল্লেখ করে মির্জা আব্বাস বলেন, “যেহেতু প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, এক এগারোর কথা, তাই এমন ঘটনা ঘটতেও পারে। কারণ তারা যা করবে, সেটা অন্যদের নামে আগে প্রচার করে থাকে।”
আওয়ামী লীগ নেতাদের উদ্দেশে তিনি বলেন, “অত্যাচার নির্যাতন করে কোনো সরকার ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারে নাই, একথা আপনারাই বলেছেন। আলাল পিন্টুকে গ্রেফতার, ইলিয়াস আলী, চৌধুরী আলমকে গুম করে ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারবেন না। হিটলার থেকে আইউব খান পর্যন্ত কেউ পারেনি।”
হলমার্ক কেলেঙ্কারির প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “শুধু তানভীরকে গ্রেফতার করলে আসল অপরাধীদের বাঁচিয়ে রাখা হবে। ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের সদস্যদেরকেও গ্রেফতার করে টাকা উদ্ধার করতে হবে।”বিডিআর বিদ্রোহের ব্যাপারে সম্প্রতি শেখ সেলিমের আদালতে দেওয়া সাক্ষ্যের উল্লেখ করে মির্জা আব্বাস বলেন, “শুনতে পেলাম পিলখানা হত্যাকাণ্ডের আগে শেখ সেলিমের বাসায় সভা হয়েছিল। সেখানে দাবি দাওয়া নিয়ে আলোচনা হয়েছিল না কি ষড়যন্ত্র হয়েছিল তা সারা দেশের মানুষ জানতে চায়। শেখ সেলিম তো সরকারের কেউ না, তাহলে বিদ্রোহীরা কেনো তার কাছে গিয়েছিল?”চকবাজার যুবদলের আহ্বায়ক সাঈদ হাসান মিন্টুর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য শওকত মাহমুদ, স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক আবুল খায়ের ভূঁইয়া, ছাত্রদলের সভাপতি আবদুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েল, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম নীরব প্রমুখ।

নিউজরুম

শেয়ার করুন