তত্ত্ববধায়ক দিন, নইলে জনরোষে পদত্যাগে বাধ্য হবেন: মওদুদ

0
114
Print Friendly, PDF & Email

রূপসীবাংলা, ঢাকা ১৭ অক্টোবর :
জনরোষে পড়ে ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার আগেই নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি মেনে পদত্যাগ করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ।
বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে স্বাধীনতা ফোরাম কেন্দ্রীয় পরিষদ আয়োজিত এক প্রতীকী অনশনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই আহ্বান জানান।
‘ইলিয়াস আলী নিখোঁজের ছয়মাসেও তাকে উদ্ধার করা হয়নি কেন? দেশবাসী জানতে চায়’ নামে এই অনশনটির আয়োজন করে পরিষদটি। মওদুদ সরকারের উদ্দেশ্যে বলেন, “নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি মেনে নিন, পদত্যাগ করুন। তা নাহলে জনরোষে পড়ে একসময় পদত্যাগে বাধ্য হবেন।” ‘বিএনপি আর একবছর পর ক্ষমতায় এলে ইলিয়াস আলী নিখোঁজের তদন্ত করবে এবং এর কঠোর বিচার করা হবে’ বলে মন্তব্য করেন তিনি।
নিখোঁজের ছয়মাস কেটে গেলেও বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস আলীকে ফিরে না পাওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন মওদুদ। তিনি বলেন, “আমরা জানি, সরকারেরই একটি অংশ ইলিয়াসকে গুম করেছে।”
মওদুদ বলেন, “আজ দেশে মানবাধিকার লঙ্ঘনের সকল রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে। সব রাষ্ট্র, আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলো বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থা অবগত আছে। বিচার বহির্ভুত হত্যাকাণ্ড নিয়ে সবাই উদ্বিগ্ন।”তিনি বলেন, “পুলিশ হেফাজতে মৃত্যু, নির্যাতন, শুধু দেশের মানুষ নয়, সারা বিশ্বের সচেতন মানুষই এখন জেনে গেছে।
দেশের উন্নয়ন, কর্মসংস্থান, প্রবৃদ্ধি বাড়াতে কাজ করছে না সরকার। বিরোধীদল দমনেই তারা ব্যস্ত। এসব আচরণ সরকারের স্বৈরাচারী মনোভাবের বহিঃপ্রকাশ। জনপ্রিয়তা হ্রাস পাওয়ায় এবং নির্বাচনে পরাজয়ের ভয়ে তারা এমন আচরণ করছে।”
আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফের সমালোচনা করেন মওদুদ।
তিনি বলেন, “তাকে ভালো মানুষ হিসেবেই জানতাম। কিন্তু তিনি আমার চরিত্র হনন করার চেষ্টা করছেন। চরিত্র হনন তারাই করে যারা নিচু মনের মানুষ।
একজন বড় মনের মানুষ, একজন রাজনৈতিক ব্যক্তির চরিত্র হনন করতে পারে না। চরিত্র হনন করে কোনো রাজনীতিবিদের স্থান কেড়ে নেয়া যায় না।”নিখোঁজের ছয়মাস পার হয়ে গেলেও এখনো বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস আলীর কোনো হদিস পাওয়া যায়নি। তাকে ফেরত পাওয়ার দাবিতে দলটি তাদের বন্ধু সংগঠনগুলোকে নিয়ে এ যাবৎ নানা কর্মসূচি পালন করে আসছে। তারই ধারাবাহিকতায় ইলিয়াস আলীর মুক্তির দাবিতে ৪র্থ বারের মতো এমন অনশন পালন করলো সংগঠনটি। প্রতিমাসের ১৭ তারিখ ইলিয়াস আলীর নিঁখোজ হওয়ার দিনটিকে এভাবে স্মরণ করে আসছে তারা। সকালে দলের স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়াও এই অনশনে বক্তব্য দেন।
বর্তমান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন খান আলমগীর মন্ত্রীত্ব পেয়ে ‘ইলিয়াস আত্মগোপন করেছেন’ বলে যে মন্তব্য করেছেন, তার নিন্দা জানান রফিক। তিনি বলেন, “একজন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর মুখে এমন মন্তব্য মানায় না।”এ সময় রফিক প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সমালোচনা করে বলেন, “তিনি দেশের বাইরে গিয়ে দেশের বিরুদ্ধে যেসব কুৎসা রটান, তা দেশের জন্য অকল্যাণ বয়ে আনবে। এতে বহির্বিশ্বে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হবে।”সংগঠনের সভাপতি আবু নাসের মু. রহমতুল্লাহর সভাপতিত্বে এই অনশনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু, বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মজিবর রহমান সারোয়ার, স্বনির্ভর বিষয়ক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু, নির্বাহী কমিটির সদস্য রফিক শিকদার, কেন্দ্রীয় কৃষক দলের যুগ্ম সম্পাদক মো. শাহজাহান মিয়া সম্রাট, জিয়া সেনার সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুর হোসেন ইসা প্রমুখ।

নিউজরুম

শেয়ার করুন